রোববার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৯ আশ্বিন ১৪২৪, ৩ মুহাররম, ১৪৩৯ | ০৩:৫৮ অপরাহ্ন (GMT)
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি
সোমবার, ১৭ জুলাই ২০১৭ ০৫:২৩:৩২ পূর্বাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

জাবিতে আমরণ অনশনের ২ শিক্ষার্থী গুরুতর অসুস্থ’

জাবি: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের দায়ের করা সন্ত্রাসী ও হত্যাচেষ্টা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে বিশ^বিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থী আমরণ অনশনের বসেছে। এদের মধ্যে দুই শিক্ষার্থী শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। রোববার সন্ধ্যায় বিশ^বিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারের ডাক্তার তৌহিদ হাসন শাহ চৌধুরী এই প্রতিবেদককে জানান, পূজা বিশ্বাস ও জাহিদ হাসান নামের দুই অনশনকারী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছে। প্রক্টরের উপস্থিতিতে রোববার সন্ধ্যা থেকে তাদের শহীদ মিনারের পাদদেশেই চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এদিকে রোববার দুপুরে জরুরী সিন্ডিকেট ডাকে বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম। সিন্ডিকেটে শিক্ষার্থীদের অনশন প্রত্যাহার করে নেওয়ার আহবান জানানো হয়েছে বলে জানা গেছে। একই সাথে বিশ^বিদ্যালয়ের নিরাপত্তা ও শৃংখলা বিনষ্ট হয় এমন কাজ থেকে বিরত থাকারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ঐ সিন্ডিকেট থেকে। মামলা প্রত্যাহার ব্যতিত সিন্ডিকেটের আহবানে অনশনকারীরা তাদের অনশন প্রত্যাহার করবে না। ফলে ২য় দিনের মতো শিক্ষার্থীদের অমরণ অনশন চলছে। অসু¯’ জাহিদ বলেন, ‘‘মামলা উঠিয়ে না নেওয়া পর্যন্ত আমি এখান থেকে উঠবো না, যদিও এখানেই আমার মৃত্যু হয়। এছাড়া শহীদ মিনারের পাদদেশে চিকিৎসা দিতে গড়িমসি করায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন’’ গুরুতর অসুস্থ’ হওয়া ডাক্তার আপনাকে হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা নিতে বলেছেন কিš‘ আপনি সেখানে যেতে চাচ্ছেন না কেন এমন প্রশ্নের জবাবে পূজা বিশ্বাস এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘‘ মৃত্যুকে বাজি রেখেই আমি অনশনে বসেছি। সুতরাং মামলা না উঠানো পর্যন্ত আমি এখান থেকে কোথাও চিকিৎসা নিতে যাব না। মামলার চেয়ে মরণই ভাল” । এমন পরিস্থিতিতে বিশ^বিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম শিক্ষার্থীদের অনশনের বিষয়ে বলেন, ‘‘মূলত অনশনকারীরা প্রশাসনকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলতে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আমি তাদেরকে অনশন প্রত্যাহার করার জন্য আহবান জানাচ্ছি।” এছাড়া তিনি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘মামলাটি আর আমাদের এখতিয়ারে নেই, মামলা এখন রাষ্ট্রের কাছে।” সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ভিসি বলেন, বাসভবন ভাংচুরের ঘটনায় যদি তারা (মামলাকৃত শিক্ষার্থী) অনুশোচনা প্রকাশ করে তবে আমরা রাষ্ট্রের কাছে শিক্ষার্থীদের হয়ে কথা বলব, তা না হলে নয়।” এর আগে গত শনিবার (১৫জুলাই) বিকেলে ইংরেজি বিভাগের ৪২ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী সরদার জাহিদ ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ৪০ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী পূজা বিশ্বাস বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারে আমরণ অনশনে বসেন। এরপর একই দিন রাত এগারোটার দিকে ইংরেজি বিভাগের ৪২ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী তাহমিনা জাহান এবং গতকাল সকালে আইন ও বিচার বিভাগের ৪৩ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী খান মুনতাছির আরমান অনশনে অংশ গ্রহণ করেন। এছাড়া বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা তাদের সাথে সংহতি প্রকাশ করেছেন। শনিবার রাতে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ঐক্য মঞ্চের নেতারা তাদের অনশন তুলে নেওয়ার অনুরোধ করেন। কিন্তু‘ অনশনকারী শিক্ষার্থীরা তাতে রাজি হয় নি। তারা শহীদ মিনারের পাদদেশেই রাত্রি যাপন করেছিলেন। তাদের নিরাপত্তার স্বার্থে অতিরিক্ত গার্ড নিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়া প্রক্টরিয়াল বডি তাদের অনশনকারীদের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিশ্চিত করেছেন। উল্লেখ্য, গত ২৬ মে সড়ক দুর্ঘটনায় জাবির দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন দাবিতে শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক অবরোধকালে পুলিশ হামলা চালায়। হামলায় সাংবাদিকসহ অন্তত ১০-১২ জন আহত হয়। পরে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের বাসায় অবস্থান ও ভাংচুর চালালে ২৭ মে রাতে ৫৬ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী ও হত্যা চেষ্টার মামলা করে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন

CLOSE[X]CLOSE

আরো খবর