সোমবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৮, ৯ মাঘ ১৪২৪, ৫ জমাদিউল আওয়াল, ১৪৩৯ | ০১:৪৯ পূর্বাহ্ন (GMT)
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি


রোববার, ১৪ জানুয়ারী ২০১৮ ০৪:০৬:৫৩ পূর্বাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

মালয়েশিয়ায় আরো ১২১ বাংলাদেশি আটক

মালয়েশিয়ায় পৃথক অভিযান চালিয়ে আরো ১২১ বাংলাদেশিকে আটক করেছে দেশটির অভিবাসন বিভাগ। অবৈধভাবে বসবাসের অভিযোগে তাদের আটক করা হয়। গত বৃহস্পতিবার অভিযান চালিয়ে মানবপাচার চক্রের হোতাসহ ৫১ বাংলাদেশিকে আটক করা হয়েছিল। মালয়েশিয়ার ইমিগ্রেশন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতি ও শুক্রবার পৃথক অভিযান চালিয়ে মালয়েশিয়ার সেলাঙ্গুর রাজ্যের সেকশন ২৮ শাহ আলম এলাকা থেকে ৫১ জন, সুবাং জায়া থেকে ১২১ জনকে আটক করা হয়েছে। মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক দাতুক সেরি মুস্তাফার আলী এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, আবদুল রউফ নামে এক বাংলাদেশিকে আটক করা হয়েছে। তিনি বিভিন্ন সময় বাংলাদেশিদের মালয়েশিয়ায় অবৈধভাবে নিয়ে এসেছেন। তিনি এখানে (মালেশিয়ায়) ‘আবাং বাংলা’ নামেও পরিচিত। ২০১৩ সালে ইটভাটায় কাজ করতে মালয়েশিয়ায় যান রউফ। তার বিরুদ্ধে মানবপাচারবিরোধী আইনে এবং অন্যদের বিরুদ্ধে অভিবাসন আইনে মামলা হবে বলেও জানান তিনি। দাতুক সেরি মুস্তাফা জানান, এই চক্রের ৫১ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বয়স ২০ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে। তাদের কাছ থেকে ৪৮টি পাসপোর্ট এবং ১৩ হাজার রিঙ্গিত উদ্ধার করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয়, পাচারকারীরা বাংলাদেশিদের প্রথমে বিমানে করে ঢাকা থেকে ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় নিয়ে আসেন। পরে সেখান থেকে তাদের মালাক্কা প্রণালীর এক জায়গায় এনে রাখা হয়। সুযোগ ও সময় মতো তাদের সেখান থেকে মালয়েশিয়ায় আনা হতো। এ জন্য প্রত্যেক বাংলাদেশির কাছ থেকে ১৫-২০ হাজার রিঙ্গিত (৩ লাখ ১৪ হাজার টাকা থেকে ৪ লাখ ১৮ হাজার টাকা) নেয়া হতো। কেউ টাকা দিতে না পারলে তাকে সেখানেই রেখে দেয়া হতো। টাকা বুঝে পাওয়ার পরই তাদের মালয়েশিয়ার নিয়োগকারীদের হাতে তুলে দেয়া হতো বলে জানান অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক। এছাড়া মেয়াদোত্তীর্ণ পাসপোর্ট ও অবৈধ সেক্টরে কাজ করার দায়ে সুবং জয়াতে আলাদা এক অভিযানে ১২১ বাংলাদেশি, ৬০ ভারতীয় ও দুই পাকিস্তানিকে আটক করা হয়েছে বলে জানান মুস্তাফা।




আরো খবর