শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর ২০১৭, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ৫ রবিউল আওয়াল, ১৪৩৯ | ১১:০৮ পূর্বাহ্ন (GMT)
ব্রেকিং নিউজ :
X
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি


শনিবার, ২৮ অক্টোবর ২০১৭ ১১:১৩:৪৮ পূর্বাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

প্রথমবারের মতো ‘অ্যালিয়েন’ ধূমকেতুর আগমন!

অ্যালিয়েন বা ভীনগ্রহের প্রাণীর সঙ্গে আমরা অনেকেই পরিচিত সায়েন্স ফিকশন সিনেমার বদৌলতে। কিন্তু অ্যালিয়েন ধূমকেতুর কথা কি কখনো শুনেছেন? ধূমকেতু নিয়মিত ভাবেই আমাদের সৌরজগতে পরিভ্রমণ করে কিন্তু সম্প্রতি বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস যে, তারা অন্য সৌরজগৎ থেকে আসা একটি ধূমকেতুকে পৃথিবীকে পাশ কাটিয়ে যেতে প্রথমবারের মতো দেখেছেন। ‘সি/২০১৭ ইউ১’ নামক এই ধূমকেতুটিতে হাওয়াইয়ে অবস্থিত টেলিস্কোপে প্রথম চিহ্নিত করা হয় ১৮ অক্টোবর, পরের সপ্তাহে আরো ৩৪ বার আলাদা সময়ে এটিকে দেখা গিয়েছিল। জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস, ‘সি/২০১৭ ইউ১’ ধূমকেতুটি প্রথম ধূমকেতু হতে পারে যেটি সৌরজগতের বাইরের কোথাও থেকে এসে, সৌরজগতের মধ্য দিয়ে চলে গেছে। যেখানে বেশিরভাগ ধূমকেতু সূর্যকে কেন্দ্র করে কক্ষপথে উপবৃত্তকারে ঘোরে, সেখানে এই ধূমকেতু একটি কৌণিক কক্ষপথে প্রদর্শিত হয় এবং সূর্যের চারপাশে ঘোরেনি। এর কক্ষপথ দেখে বোঝা যাচ্ছে যে, এটি লিরা নক্ষত্রপুঞ্জের দিক থেকে এসে আমাদের সৌরজগতে প্রবেশ করেছিল এবং আর কখনো ফিরে আসবে না। সাউথইস্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের গ্রহবিজ্ঞানী ড. সাইমন পোর্টার নিউ সায়েন্টিস্টকে বলেন, ‘এটা খুব দূর থেকে এসেছে কিন্তু শুরুটা কত দূর থেকে তা আমরা আসলে ফিরে পেতে পারি না। এটা হতে পারে যে এটি সৌর সিস্টেমের বাইরে থেকে এসেছে, কিন্তু তা সত্যিই বলাটা কঠিন।’ ইন্টারন্যাশনাল অ্যাস্ট্রোনমিকাল ইউনিয়নের মাইনর প্লানেট সেন্টার (এমপিসি) কর্তৃক প্রকাশিত এই পর্যবেক্ষটিতে ধারণা করা হয়েছে যে, ধূমকেতুটি অন্য নক্ষত্র থেকে এসেছে। এমপিসির বিজ্ঞানীরা বলেন, ‘যদি আরো পর্যবেক্ষণ এই কক্ষপথের অস্বাভাবিক প্রকৃতি নিশ্চিত করে, তবে এই বস্তুটি বাইরের ধূমকেতুর প্রথম স্পষ্ট উদাহরণ হতে পারে।’ তবে সকলেই বিশ্বাস করছেন না যে, ধূমকেতুটি অন্য সৌরজগৎ থেকে এসেছে। ইউনিভার্সিটি অব নর্থ ফ্লোরিডার গ্রহবিজ্ঞানী ড. মারিয়া ওমেক বলেন, ‘এটি বৃহস্পতি গ্রহের সঙ্গে সম্পর্কিত হতে পারে অথবা সৌরজগতেরই অন্য কোনো গ্রহ থেকে আগত, যেটি কেবল তার কক্ষপথ পরিবর্তন করেছে।’ জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা ধূমকেতুটির উৎপত্তি সম্পর্কে আরো জানতে নজর রাখার পদক্ষেপ নিচ্ছেন।





আরো খবর