শনিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৭, ৪ ভাদ্র ১৪২৪, ২৬ জিলকদ, ১৪৩৮ | ১০:৩৬ অপরাহ্ন (GMT)
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি
শনিবার, ০৮ এপ্রিল ২০১৭ ০৭:১০:৪৮ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

আচরণবিধি লঙ্ঘনের ছবি তোলায় সাংবাদিককে গাছে বেঁধে নির্যাতন

 

মাদারীপুর: মাদারীপুরের কালকিনিতে উপজেলা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক যায়যায় দিন পত্রিকার স্থানীয় প্রতিনিধি শহিদুল ইসলামকে গাছে বেঁধে নির্যাতন করেছে ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় লোকজনেরা।

শুক্রবার দুপুরে উপজেলার পূর্ব এনায়েত নগর ইউনিয়ন এ ঘটনা ঘটে।

ওই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহ করতে তিনি এ নির্যাতনের শিকার হন। এ ঘটনার পর উল্টো পুলিশ ওই সাংবাদিককে আটক করে থানায় নিয়ে যান। পরে ওই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা করলে তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।


প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, দুপরে নির্বাচনী প্রচারণার সংবাদ সংগ্রহ করে পূর্ব এনায়েত নগর ইউনিয়নে যান সাংবাদিক শহিদুল ইসলাম। এসময় আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালাচ্ছে এমন ঘটনার ছবি তুলতে গেলে তার উপর আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী বাদল তালুকদারের সমর্থকরা অতর্কিত হামলা চালায়।

তাৎক্ষণিকভাবে থানায় খবর দিলে পুলিশ ওই সাংবাদিককে কালকিনি থানায় নিয়ে যায়। এসময় চেয়ারম্যান প্রার্থীর ছোট ভাই সরোয়ার তালুকদার (৩০) ও নাজমুল খান (১৭) নামে দুইজনকে আটকও করা হয়।

বিকালে এ বিষয়ে থানায় মামলা করতে গেলে স্থানীয় নেতাকর্মীদের চাপের মুখে পড়ে ওই সাংবাদিকের মামলা না নিয়ে উল্টো থানায় তাকে আটকে রাখা হয়। এরপর সন্ধ্যায় অসুস্থ হয়ে পড়লে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গিয়ে তাকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

আহত সাংবাদিক শহিদুল ইসলাম জানান, আমাকে নির্বাচনী এলাকায় পেশাগত দায়িত্বপালনকালে একা পেয়ে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী বাদল তালুকদারের সমর্থকরা গাছে বেঁধে মারধর করেছে।

চেয়ারম্যান প্রার্থী বাদল তালুকদারের ফোন নম্বরে একাধিকবার করলেও ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। 

এ ব্যাপারে সাংবাদিকরা থানায় গেলে স্থানীয় এমপি বাহাউদ্দিন নাছিমের সঙ্গে সমঝোতা করলেই ওই সাংবাদিককে ছাড়া হবে বলে জানিয়েছে কালকিনি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কৃপা সিন্দু বালা।

CLOSE[X]CLOSE

আরো খবর