রোববার, ২০ আগস্ট ২০১৭, ৫ ভাদ্র ১৪২৪, ২৭ জিলকদ, ১৪৩৮ | ০২:০০ পূর্বাহ্ন (GMT)
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি
শুক্রবার, ১৯ মে ২০১৭ ১০:১৭:১৮ পূর্বাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

চালের দাম বাড়ছেই

পাইকারি ও খুচরা বাজারে চালের দাম ফের কেজিতে দুই থেকে তিন টাকা বেড়েছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, পাইকারি বাজারে চালের দাম বৃদ্ধির কারণে খুচরা বাজারে চালের দাম বেশি নেওয়া হচ্ছে। এদিকে দিন দিন চালের দাম নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাওয়ার কারণে ক্ষুব্ধ ক্রেতারা। তারা বলছেন, নানা অজুহাতে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যের দাম বাড়ছেই। শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার, কৃষি মার্কেট, মোহাম্মদপুর বাজারসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে চালের দাম বৃদ্ধির এ চিত্র পাওয়া গেছে। মোহাম্মদপুর বাজারের চাল ব্যবসায়ী আবদুল মজিদ বলেন, ‘পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বস্তায় ৫০ থেকে ৬০ টাকা বেশি দিয়ে চাল কিনতে হচ্ছে। তাই চালের দাম বেশি রাখতে হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, গত সপ্তাহে যে চালের বস্তা (৫০ কেজি) ২ হাজার ৬৫০ টাকায় কিনেছি, এ সপ্তাহে সেই বস্তা কিনতে হয়েছে ২ হাজার ৭৫০ টাকায়। জিগাতলা বাজারের চাল ব্যবসায়ী হারুন মিয়া বলেন, সাধারণ মানুষের চাহিদা হচ্ছে গুটি স্বর্ণা ও পারিজাত চাল। সরকার কর আরোপ করায় ভারত থেকে একেবারে চাল আমদানি বন্ধ রয়েছে। তাই চালের দাম বেড়েছে। তিনি বলেন, ‘আটাশ চাল ৫০ কেজির বস্তা কিনতে হচ্ছে পাইকারি ২৩০০ টাকায়, যা গত সপ্তাহে কিনেছি ২ হাজার ২২০ টাকা। এখন কেজিতে যদি ২ টাকা বেশি না রাখি তাহলে আমাদেরতো কোন লাভই থাকবে না।’ বাজারে মিনিকেট চাল বিক্রি হয়েছে ৫৬-৬০ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ৫৪-৫৫ টাকা। পারিজাত বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ৪৮ টাকা, গুটি স্বর্ণা চাল ৪৭ টাকা, আটাশ চাল ৪৭-৪৯ টাকা, নাজিরশাইল ৫৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা গত সপ্তাহে ছিল ৫০-৫৫ টাকা কেজি। চাল কিনতে আসা নাসরিন সুলতানা নামে এক নারী জানান, বাজারের যে চরিত্র দাঁড়িয়েছে, এতে কয়েকদিন পর না খেয়েই থাকতে হবে। এভাবে চালের দাম বাড়তে থাকলে আমাদের মতো সাধারণ জনগণের অবস্থা খারাপ হবে। তিনি বলেন, ‘পরিবারের সদস্য বেশি হওয়ায় আয়ের বড় একটি অংশই চলে যায় চাল কিনতে। সেই চালের দাম যদি দফায় দফায় বাড়ছে।’

CLOSE[X]CLOSE

আরো খবর