শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ১ পৌষ ১৪২৪, ২৬ রবিউল আওয়াল, ১৪৩৯ | ০৭:৪৬ অপরাহ্ন (GMT)
ব্রেকিং নিউজ :
X
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি


বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৭ ০১:১০:০৩ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

রোহিঙ্গাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসনের পরিবেশ নেই : ইউএনএইচসিআর

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও টেকসই প্রত্যাবাসনের উপযুক্ত পরিবেশ নেই মন্তব্য করে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআরের ডেপুটি কমিশনার কেলি ক্লেমেন্টস বলেছেন, সহিংসতা ও মানসিক আঘাতের শিকার হয়ে রোহিঙ্গারা এখনো বাংলাদেশে পালিয়ে আসছে। এসব শরণার্থীদের অনেকেই পরিবারের সদস্য ও স্বজনদের মৃত্যু প্রত্যক্ষ করেছে। তাদের অনেকেরই বাড়ি-ঘর ও গ্রাম ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। ফিরে যাওয়ার মত কিছুই আর অবশিষ্ট নেই। তিনি বলেন, রাখাইনে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে বিরোধ নিরসনে এখনো কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাগুলোতে মানবিক সংস্থাগুলোর প্রবেশাধিকার সীমিত। প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বাস্তবায়নের আগে এসব বিষয় সমাধান হওয়া প্রয়োজন। বাংলাদেশ সফর শেষে আজ রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ক্লেমেন্টস এসব কথা বলেন। তিনি জানান, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে নেইপিডোতে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সইয়ের আলোচনায় ইউএনএইচসিআরকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। তবে এমওইউ’তে ইউএনএইচসিআরের সম্ভাব্য ভূমিকার উল্লেখ থাকাটা ইতিবাচক। প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে শরণার্থীদের তথ্য-সমৃদ্ধ (ইনফর্মড) ও স্বাধীন সিদ্ধান্ত গ্রহণ, পর্যায়ক্রমে তাদের নিজ দেশে সুরক্ষিত পরিবেশে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার সার্বিক নির্ভরযোগ্যতা পর্যবেক্ষণ করাটা গুরুত্বপূর্ণ। অদূর ভবিষ্যতে দুই দেশের সরকার এসব বিষয়, বিশেষ করে ইউএনএইচসিআরের ভূমিকা, কাজের পরিধি, প্রত্যাবাসনের সময়সীমা এবং যে সব শর্ত পূরণ করে একজন শরণার্থী প্রত্যাবাসনের যোগ্য বিবেচিত হবে - তার বিস্তারিত নিয়ে আলোচনা চালিয়ে যাবে বলে আমরা আশাবাদী।





আরো খবর