বুধবার, ২৪ মে ২০১৭, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, ২৭ সাবান, ১৪৩৮ | ০২:৩৩ পূর্বাহ্ন (GMT)
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি
মঙ্গলবার, ০৯ মে ২০১৭ ১২:২২:৫২ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

গাইবান্ধার সাবেক এমপি আজিজসহ ৬ জনের রায় যেকোনো দিন

মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে জামায়াত নেতা ও গাইবান্ধার সাবেক সংসদ সদস্য আবু সালেহ মুহাম্মদ আব্দুল আজিজ মিয়াসহ ছয় আসামির মামলায় রায় ঘোষণার জন্য অপেক্ষমাণ রেখেছে ট্রাইব্যুনাল। রাষ্ট্র ও আসামি উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে মঙ্গলবার ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এই আদেশ দেন। আদালতে মঙ্গলবার আসামিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবী গাজী এমএইচ তামিম ও মো. শাহিনুর ইসলাম। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে সোমবার যুক্তিতর্ক পেশ করেন প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন ও শেখ মোশফেক কবির। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রসিকিউটর সৈয়দ হায়দার আলী। মামলায় আব্দুল আজিজ ছাড়াও অন্যান্য আসামিরা হলেন- মো. রুহুল আমিন ওরফে মঞ্জু (৬১), মো. আব্দুল লতিফ (৬১), আবু মুসলিম মোহাম্মদ আলী (৫৯), মো. নাজমুল হুদা (৬০) ও মো. আব্দুর রহিম মিঞা (৬২)। এদের মধ্যে মো. আব্দুল লতিফ কারাগারে আছেন, অন্যরা পলাতক। যুক্তিতর্ক শেষে রাষ্ট্রপক্ষের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন সাংবাদিকদের জানান, আসামিদের বিরুদ্ধে আনা সব অপরাধের বিষয়ে প্রসিকিউশন লিখিত ও দালিলিক সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে অপরাধ প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। আশা করি আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে। এর আগে গত ১৬ এপ্রিল মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের প্রসিকিউশনের আনা সাক্ষ্য গ্রহণ কার্যক্রম শেষ করার পর আর্গুমেন্টের জন্য ৮ মে দিন নির্ধারণ করেন ট্রাইব্যুনাল। নির্ধারিত দিনে আসামিদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের বিষয়ে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করেন রাষ্ট্রপক্ষের প্রসিকিউশন। এর ধারাবাহিকতায় আসামিপক্ষের আইনজীবী গাজী এমএইচ তামিম পাল্টা যুক্তিতর্কের কার্যক্রম শেষ করার পর রায় ঘোষণার জন্য অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখেন আদালত। ছয় আসামির বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করা হয়। ওই বছরের ২৩ নভেম্বর প্রসিকিউশনের করা আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২৬ নভেম্বর ট্রাইব্যুনাল ছয়জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। এ মামলায় মাত্র একজন আসামিকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় পুলিশ। পরে আজিজসহ সব আসামিকে পলাতক দেখিয়েই আদালতে মামলার বিচারকাজ শুরু হয়। জানা গেছে, জামায়াতের কেন্দ্রীয় সদস্য আব্দুল আজিজ মিয়া ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পযর্ন্ত চারদলীয় জোটের অধীনে জামায়াত থেকে গাইবান্ধা সুন্দরগঞ্জ-১ আসনে সংসদ সদস্য ছিলেন।

CLOSE[X]CLOSE

আরো খবর