শুক্রবার, ২৮ এপ্রিল ২০১৭, ১৫ বৈশাখ ১৪২৪, ১ সাবান, ১৪৩৮ | ১২:৩১ পূর্বাহ্ন (GMT)
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি
শনিবার, ১৮ মার্চ ২০১৭ ০১:৩০:৪৩ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বিশাল অগ্রগতি

 

 

লন্ডন: নতুন আবিষ্কৃত একটি ড্রাগ রক্তের খারাপ কলেস্টেরলকে অভূতপূর্ব মাত্রায় কর্তন করতে সক্ষম হয়েছে বলে জানিয়েছেন যুক্তরাজ্যের চিকিৎসকেরা। এর ফলে লক্ষ্যণীয়ভাবে হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের মাত্রা প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে বলে মনে করা হচ্ছে।  

 

প্রায় ২৭,০০০ রোগীর উপর নতুন আবিষ্কৃত এই ড্রাগটির পরীক্ষা চালানো হয়; যা ছিল অন্যতম একটি বড় ধরনের আন্তর্জাতিক গবেষণা।  

 

গবেষণার এই ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে ড্রাগটি খুব শিগগিরই লাখ লাখ রোগীদের নিরাময়ে ব্যবহার করা যেতে পারে বলে চিকিৎসকেরা জানান।

 

 

ব্রিটিশ হার্ট ফাউন্ডেশন জানিয়েছে, বিশ্বের সবচেয়ে বেশি মানুষ হত্যাকারী এই রোগটির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এই গবেষণার ফলাফল একটি উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি।

 

প্রতি বছর প্রায় ১৫ মিলিয়ন মানুষ হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের কারণে মারা যায়। 

 

এজন্য খারাপ কলেস্টেরলকে বলা হয় হার্টের খলনায়ক। এটা রক্তনালীকে আটকে দিয়ে অতি সহজেই হার্টে ব্লক তৈরি করে; যা মারাত্মকভাবে হার্ট বা অক্সিজেনের মস্তিষ্ককে দুর্বল করে দেয়।

 

এ কারণে খারাপ কলেস্টেরলের পরিমাণ কমাতে লাখ লাখ মানুষ ‘স্টোয়াটিন’ নামে এক ধরনের ঔষধ গ্রহণ করে থাকে।

 

নতুন এই ড্রাগটির নাম দেয়া হয়েছে ‘ইভোলোকুমাব’। এটি লিভারের কাজের পথকে পরিবর্তন করার পাশাপাশি খারাপ কোলেস্টেরলকে কর্তন করে ফেলে।

 

লন্ডনের ইম্পেরিয়াল কলেজের অধ্যাপক পিটার সেভার বলেন, ‘এটা স্টোয়াটিনের চেয়ে অনেক বেশি কার্যকর।’

 

তিনি ড্রাগ কোম্পানি ‘অ্যামেগন’ এর অর্থায়নে পরিচালিত এ গবেষণা কাজের সঙ্গে যুক্ত আছেন।

 

অধ্যাপক সেভার বিবিসি নিউজ ডটকমকে বলেন, ‘এটি শেষ পর্যন্ত কলেস্টেরলের মাত্রাকে কমতে থাকে এবং এই কলেস্টেরলের মাত্রা কমতে কমতে এক সময় সর্বনিম্ন পর্যায়ে পৌঁছায়।’

 

অধ্যাপক সেভার আরো বলেন, ‘এটি অন্য ঝুঁকির মাত্রাও ২০ শতাংশ হ্রাস করবে এবং তা হচ্ছে একটি বড় প্রভাব। কলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে আনার জন্য ২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর এটাই সম্ভবত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গবেষণার ফল।’

 

এ গবেষণার ফলাফল নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল মেডিসিনে প্রকাশিত হয়েছে এবং আমেরিকান কলেজ অফ কার্ডিওলজির সভাযেও এটি পেশ করা হয়।

 

গবেষণায় দেখা গেছে, দুই বছরের ট্রায়ালে প্রতি ৭৪ রোগী এই ড্রাগ গ্রহণ করায় একটি হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোক প্রতিরোধ করা গেছে।

 

ওষুধটি জীবন বাঁচাতে কার্যকরী হলে খুব শিগগিরই এ বিষয়ে বিস্তারিত প্রকাশ করা হবে।

 

এটা কিভাবে কাজ করে? 

‘ইভোলোকুমাব’ হচ্ছে একটি অ্যান্টিবডি; যা ইমিউন সিস্টেম দ্বারা ব্যবহৃত সংক্রমণের বিরুদ্ধে অস্ত্রের মত কাজ করে।

 

যাইহোক, এটা যকৃতের প্রোটিনকে টারগেট করে ডিজাইন করা হয়েছে এবং শেষ পর্যন্ত এটা রক্ত থেকে খারাপ কলেস্টেরল বের করে দেয় এবং কলেস্টেরলকে ভেঙ্গে দিয়ে অঙ্গকে ভাল রাখে। 

 

প্রতি দুই থেকে চার সপ্তাহ পর এই অ্যান্টিবডি চামড়ায় ইনজেকশনের মাধ্যমে দেয়া হয়। 

 

খরচের ক্ষেত্রে দেশভেদে কিছুটা তারতম্য হতে পারে। 

 

যুক্তরাজ্যে এর চিকিৎসায় প্রতিটি রোগীর জন্য প্রতি বছর ২,০০০ পাউন্ট খরচ হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। দেশটিতে যেসব রোগীর শরীরে স্টোয়াটিন কাজ করছে না তারা ইতোমধ্যে এটি নিতে শুরু করেছেন।  

 

ব্রিটিশ হার্ট ফাউন্ডেশনের পরিচালক প্রফেসর স্যার নিলেশ সামানি বলেন, এই অনুসন্ধানের ফলাফল একটি তাৎপর্যপূর্ণ অগ্রগতি।’

 

সূত্র: বিবিসি

CLOSE[X]CLOSE

আরো খবর