সোমবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৭, ৮ কার্তিক ১৪২৪, ২ সফর, ১৪৩৯ | ০১:২৮ অপরাহ্ন (GMT)
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি
রোববার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ০২:৪১:৩৮ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

নারী ওসির যৌন নির্যাতনের শিকার কনস্টেবল!

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে একটি থানার নারী ওসির বিরুদ্ধে একই থানার এক নারী কনস্টেবলকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। অসুস্থ অবস্থায় ওই নারী কনস্টেবলকে প্রথমে পুলিশ হাসপাতাল ও পরে কলকাতা মেডিকেল রিসার্চ ইনস্টিটিটে ভর্তি করা হয়। ভারতের গণমাধ্যম বলছে, যৌন প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ওয়াটগঞ্জ মহিলা থানার কনস্টেবল আজিজা বেগমকে দিনের পর দিন মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার চালানোর অভিযোগ উঠল ওই থানারই নারী ওসি সুচিস্মিতা মিশ্রের বিরুদ্ধে। রোববার আজিজাকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা থানায় আটকে রেখে তাকে মারধরও করা হয় বলে অভিযোগ। এই অত্যাচারে আজিজা অসুস্থ হয়ে পড়েন। অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে ওয়াটগঞ্জ মহিলা থানার ওসি সুচিস্মিতা মিশ্রের বিরুদ্ধে পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার এবং ডিসি (বন্দর) সৈয়দ ওয়াকার রাজার কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন কনস্টেবলের বাবা মোহাম্মদ বরকতুল্লা। এ বিষয়ে সম্পূর্ণ এড়িয়ে গিয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি ওসি সুচিস্মিতা মিশ্র। ডিসি (বন্দর) সৈয়দ ওয়াকার রাজা বলেন, বিষয়টি এখনও পর্যন্ত আমার জানা নেই। এই বিষয়ে কোনও অভিযোগপত্রও এখনও পর্যন্ত আমার হাতে আসেনি। অভিযোগ হাতে পেলে কে প্রকৃত দোষী তা নিশ্চয় তদন্ত করে দেখা হবে। গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, কোলাঘাটের ছাতিন্দা গ্রামের তরুণী আজিজা। কয়েক বছর আগে তিনি কলকাতা পুলিশে চাকরি পান। প্রথমে তিনি ওয়াটগঞ্জ সাধারণ থানাতেই পোস্টিং ছিলেন। কয়েক বছর আগে ওয়াটগঞ্জ মহিলা থানা তৈরি হলে তিনি ওই থানাতেই বদলি হয়ে আসেন। তার বাবা মহম্মদ বরকতুল্লা অভিযোগে জানিয়েছেন, মহিলা থানাতে বদলি হয়ে আসার পরেই সেই থানার ওসি সুচিস্মিতা মিশ্র আজিজাকে প্রথমে যৌন প্রস্তাব দেন। তাতে রাজি হয়নি আজিজা। এরপরই শুরু হয় তার ওপর ওসির নানা ধরনের নির্যাতন। মাঝরাতে ডিউটি চলাকালীন মদ কিনে আজিজাকে ওসির খালি কোয়ার্টারে আসতেও বলা হয়। সেই সময় বলা হয়, পুলিশের উর্দি ছেড়ে টাইট জিনস ও টি শার্ট পরে যেন আজিজা ওসির কোয়ার্টারে আসে। কিন্তু আজিজা ওসির সেই কথা শোনেনি। কথা না শোনার জেরেই আজিজার ওপর ওসির অত্যাচার আরও বাড়তে থাকে বলে অভিযোগ। বরকতুল্লা অভিযোগ করে বলেন, ওসির অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বাড়িতে এসে কান্নাকাটি করতে থাকে আজিজা। এই অবস্থায় আমরা আজিজাকে চাকরি ছেড়ে দিতে বলি। এমনকী, বলি তাকে অন্য থানায় বদলি নিয়ে নিতে। নিজের বদলির জন্য চেষ্টাও করে আজিজা। কিন্তু সেই কথা কোনওভাবে ওসি জানতে পেরে আমার মেয়ের ওপর অত্যাচার আরও বাড়িয়ে দেন। তা সহ্য করতে না পেরে আজিজা এমএ পড়ে অন্য কোনও ভাল চাকরি নেওয়ার জন্য ওসির কাছে ছুটির দরখাস্ত নিয়ে যায়। কিন্তু সেই দরখাস্ত ওসি ছিঁড়ে ফেলে দিয়ে চরম গালিগালাজ করেন। এই অত্যাচারে আজিজা অসুস্থ হয়ে পড়ে। তিনি আরও বলেন, এই অবস্থায় রোববার আজিজাকে থানায় আটকে রেখে মারধর করেন ওসি। আমার মেয়ে আরও অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বাধ্য হয়ে প্রথমে পুলিশ হাসপাতাল ও পরে কলকতা মেডিকেল রিসার্চ ইনস্টিটিউটে ভর্তি করে দেওয়া হয়। ওসির অত্যাচারে আমার মেয়ে এখন মানসিক ও শারীরিকভাবে চরম বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

আরো খবর