রোববার, ২৫ জুন ২০১৭, ১১ আষাঢ় ১৪২৪, ৩০ রমজান, ১৪৩৮ | ০৩:৪০ পূর্বাহ্ন (GMT)
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি
শুক্রবার, ১৪ এপ্রিল ২০১৭ ০৭:৪৪:৫৩ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

৬৪ বছর পর প্রেমিক-প্রেমিকার পুনর্মিলন, অতঃপর বিয়ে

 

 

 

 

ওয়াশিংটন: কথায় আছে, পুরানো প্রেম নাকি কখনো মরে না। অন্তত যুক্তরাষ্ট্রের এই হাইস্কুল প্রেমিক-প্রেমিকার জন্য কথাটি বাস্তবে পরিণত হয়েছে। দীর্ঘ দিন পর তারা পুনরায় একত্রিত হয়েছেন এবং পরিশেষে ছয় দশকের প্রেমের বন্ধনকে মধুচন্দ্রিমায় নিয়ে গেছেন।

 

এই প্রেমিক জুটি হচ্ছে জয়েস কেভোরকিয়ান ও জিম বোম্যান। বর্তমানে তাদের উভয়েরই ৮১ বছর। ১৯৫৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়ার সময় তারা প্রেমে পড়েন। কিন্তু কলেজে উঠার পর শেষ পর্যন্ত তাদের প্রেমে ছেদ পড়ে।

 

জয়েস ভর্তি হন উইসকনসিনের লরেন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং জিম ভর্তি হন আইওয়া স্টেট ইউনিভার্সিটিতে।

 

 

পরে তারা উভয়েই নিজেদের মতো করে বিয়ে করেন। এতে তারা সুখীও ছিলেন। তাদের ঘরে সন্তান ও নাতি-নাতনি রয়েছে। যাইহোক, বিয়ের ৫৩ বছর পরে জয়েসের স্বামী হঠাৎ স্ট্রোকে মারা যান।

 

জয়েসের নাতনি আনা হ্যারিস (২১) বলেন, ‘দাদী (জয়েস) ভালভাবে বিষয়টি হ্যান্ডেল করতে পারেনি। তারা একজন অন্যজনের কাছ থেকে দীর্ঘদিন আলাদা ছিলেন। তার জীবনের একটা বড় অংশ চলে গিয়েছে।’

 

তিনি জানান, গত বছরের শেষের দিকে জয়েস তার হাইস্কুল লাভার জিমের কাছ থেকে একটি চিঠি পান। জিমের বিয়ের ৫৮ বছর তার পত্নী আলজেইমার রোগে আক্রান্ত হয়ে সম্প্রতি মারা গেছেন। তিনি ওই হাইস্কুলের পুনর্মিলনের আয়োজন করেন আর এভাবেই তিনি তার সাবেক প্রেমিকার সন্ধান পান।

 

জয়েস জানান,  তাকে (জিম) আবারো দেখতে পাওয়া তার জন্য পরম পাওয়া। এরপর থেকে এই প্রেমিক যুগল প্রায় প্রতি রাতেই ফোনে কথা বলা শুরু করেন।

 

গত ডিসেম্বরে জিম তার ইলিনয়ের বাড়ি থেকে পাঁচ ঘণ্টার পথ ড্রাইভ করে ইন্ডিয়ানায় জয়েসের অবসর কেন্দ্রে আসার সিদ্ধান্ত নেন। ১৯৫৩ সালের পর প্রথমবারের মতো তারা এখানে ডেটটিং করেন।

 

জিম বলেন, ‘সেখানে একটি স্ফুলিঙ্গ আমাদের অন্তরে ধিকিধিকি জ্বলছিল এবং আমরা তা জানতাম না। ওই সামান্য স্ফুলিঙ্গ আমাদের হৃদয়কে পুনঃপ্রজ্জ্বলিত করে।’

 

জিম জানান, ৬৪ বছর আগের সেই ভালবাসায় ফিরতে চান কিনা তা তার কাছে জানতে চান জয়েস।

 

এর কিছু দিন পরে ডিসেম্বরের শেষে জয়েস জিমের কাছ থেকে একটি বিশেষ ফোন কল পান। ফোনে জয়েসকে তিনি বিয়ের প্রস্তাব দেন। 

 

বিষয়টি দাদী জয়েস তার নাতনি আনাকে জানান। পরে আনা তাকে বলেন, ‘আমি মনে করি এটি একটি ভাল ধারণা। আপনার যখন ৮১ বছর বয়স তখন আর অপেক্ষা করবেন না।’

 

গত ১ এপ্রিল তারা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেয়। জয়েসের অবসর কেন্দ্রে এ বিবাহ অনুষ্ঠিত হয়।

 

বিয়ের অনুষ্ঠানে জয়েসের নাতনি আনা তার দাদীর সঙ্গী হিসেবে ছিলেন। অনুষ্ঠানে এই দম্পতির প্রায় ৩০ জন পরিবারিক সদস্য এবং বন্ধুরা উপস্থিত ছিল।

 

আন্না একসঙ্গে এই নবদম্পতির ছবি পোস্ট করলে তাৎক্ষণিক তা সামাজিক মিডিয়ায় ঝড় তুলে।

 

আনা তার টুইটার পোস্টের শিরোনাম দেন, ‘আমার দাদী আজ তার স্কুলের লাভারকে বিয়ে করেছেন। তারা প্রেমে পরার ৬৪ বছর পর একে অপরের দেখা পান এবং আবারো প্রেমে পড়ে যান।’

 

বিয়ের পর একটুও সময় নষ্ট না করে এই যুগল ব্রাউন কাউন্টির স্টেট পার্কে মধুচন্দ্রিমায় যান। তারপর সেখান থেকে জয়েসের নাতনিকে দেখার জন্য ইন্ডিয়ানার ব্লুমিংটন যান। সর্বশেষ সিনসিনাটি সফর করেন তারা।

 

টুডে ডটকম অবলম্বনে

CLOSE[X]CLOSE

আরো খবর