রোববার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭, ৩ পৌষ ১৪২৪, ২৮ রবিউল আওয়াল, ১৪৩৯ | ১২:৩১ পূর্বাহ্ন (GMT)
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি


সোমবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৩:০৫:৪২ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

ভারতীয় সিনেমায় নক্ষত্রপতন, চলে গেলেন শশী কাপুর

প্রয়াত বর্ষীয়ান অভিনেতা শশী কাপুর। সোমবার বিকেলে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৯। দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্য জনিত রোগে ভুগছিলেন তিনি। কিডনির সমস্যা ছিল অভিনেতার। বারবার ডায়ালিসিস করতে হত তাঁকে। সোমবার বিকেলে জীবনের কাছে হার মানেন অভিনেতা। কাপুর পরিবারের জন্ম। সেই সুবাদেই অভিনয় জগতে আসা। তবে কেবল পারিবারিক ঐতিহ্য নয় নিজের অভিনয়ের জোরেই চলচ্চিত্র মহলে নিজের সম্মান আদায় করেছেন শশী। অমিতাভ বচ্চনের মতো অভিনেতার পাশে দাঁড়িয়েই নিজের আলাদা পরিচিতি তৈরি করেছেন। তৈরি করেছেন নিজস্ব ম্যানারিজম যা আজও অনেক অভিনেতার কাছে আদর্শ। সিনেমায় অভিনয়ের পাশাপাশিই চালিয়ে গিয়েছেন থিয়েটার। পারিবারিক পৃথ্বী থিয়েটারকে জীবন্ত রাখতে তাঁর অবদান অনস্বীকার্য। কাপুর পরিবারের ঘরানাতেই তৈরি হয়েছিলেন শশী। থিয়েটার ছিল রক্তে। আলো-ক্যামেরার দুনিয়ার সঙ্গে পরিচিতি সেই ছোটবেলা থেকেই। কিন্তু যত দিন গিয়েছে, তত নিজেকে অন্য মাত্রায় তুলে নিয়ে গিয়েছিলেন শশী। প্রথাগত বাণিজ্যিক ছবির বাইরেও সিনেমার যে সমান্তরাল ধারা, সেখানেও তাঁর উজ্জ্বল উপস্থিতি। শ্যাম বেনেগাল থেকে অপর্ণা সেনের মতো পরিচালক তাঁকেই বেছে নিয়েছেন চরিত্র অভিনেতা হিসেবে। আবার দিওয়ার-এর মতো একেবারে মূলধারার বাণিজ্যিক ছবিতেও তিনি অভিনয় করেছেন। শুধু অভিনয়ই করেননি, অমিতাভ বচ্চনের দুরন্ত নায়কোচিত দাপটের মধ্যেও আলাদা জায়গা করে নিতে পেরেছেন। থিয়েটারের ঘরানা ধারণ করেই ভারতীয় সিনেমার দুনিয়াকে নয়া গতি দিয়েছিলেন। তাঁর অভিনয় তাই পরবর্তীকালে স্বতন্ত্র এক ঘরানা হয়ে ওঠে। আধুনিক প্রজন্মের কাছে তিনি নিজেই এক প্রতিষ্ঠান। বাণিজ্যিক ছবির পাশাপাশি ভারতীয় সিনেমায় একটা ধারা সবসময়ই প্রবাহিত হয়। যা বিনোদনের বাইরেও তুলে আনে সামাজিক বিভিন্ন সমস্যাকে। তুলে আনে কঠোর বাস্তবকে। একেবারে বিনোদনের বাড়ির ছেলে হলেও , শশী কাপুরের লক্ষ্য ছিল ভাল সিনেমা তৈরি করা। নিজে তো অভিনয় করেছেন বিভিন্ন ধারার ছবিতে। উৎসাহ দিয়েছেন এই তরুণ পরিচালকদেরও। ব্যক্তিগত জীবনেও ইন্ডাস্ট্রির মনের মানুষ ছিলেন শশী। বড় তারকা, কাপুর পরিবারের সন্তান। কিন্তু বিতর্কে তেমন জড়াতে দেখা যায়নি তাঁকে। রিল লাইফে যেন হাস্যোজ্জ্বল মুহূর্তে তাঁকে দেখা যেত, রিয়েল লাইফেও তিনি অনেকটা ছিলেন সেরকমই। ভারতীয় সিনেজগতের সর্বোচ্চ পুরস্কার দাদাসাহাবে ফালকেতেও সম্মানিত হয়েছেন। তবে শশীর স্থান ভারতীয় দর্শকের হৃদয়ে। শিল্পীর মৃত্যু নেই। বরং মরণের পার থেকে শুরু হয় তাঁর নতুন যাত্রা। স্মৃতির পর্দায় আজ থেকে শুরু শশী কাপুরের সেই অলৌকিক পথচলা।





আরো খবর