বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৮, ৫ মাঘ ১৪২৪, ১ জমাদিউল আওয়াল, ১৪৩৯ | ০৪:০৮ পূর্বাহ্ন (GMT)
শিরোনাম :
  • নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে আ.লীগ: কাদের
  • ইসি নয়, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে হার্ডলাইনে যাবে বিএনপি


শুক্রবার, ০৫ জানুয়ারী ২০১৮ ০৪:১৩:০৪ পূর্বাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

দুবাই প্রবাসী বাংলাদেশিরা পাসপোর্ট নিয়ে চরম দুর্ভোগে

সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) দুবাইয়ে বাংলাদেশ কনসুলেটের সার্ভার খারাপ হওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন পাসপোর্টের সেবা নিতে আসা হাজার হাজার বাংলাদেশি। গত ২৮ ডিসেম্বর এই সার্ভার খারাপ হয়। কবে তা সচল হবে সে ব্যাপারে কনসুলেটের কর্মকর্তারা কিছু বলছেন না। এদিকে পাসপোর্ট করতে না পারায় ভিসা ও লাইসেন্স নবায়ন, দেশে ফেরাসহ অনেক কাজই করতে পারছে না দুবাই, শারজাহ, আজমান, ফুজেইরাহ, রাসাল খাইমাহ, উম্মুল কুয়েইন অঞ্চলে বসবাসকারী প্রবাসী বাংলাদেশিরা। বাংলাদেশ দূতাবাসের সচিব (শ্রম) মিজানুর রহমান বলেন, ‘প্রবাসীদের সাময়িক অসুবিধা হচ্ছে এ বিষয়টি নিয়ে। তবে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে এ বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে প্রবাসীদের জানিয়ে দিয়েছি।’ তিনি বলেন, পাসপোর্ট গ্রাহকরা চাইলে আবুধাবিতে বাংলাদেশ দূতাবাসে গিয়ে সেবা নিতে পারেন। পাসপোর্টের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা ভাইস কনসাল জেনারেল মেহেদুল ইসলাম বলেন, প্রতিদিন তিনশ থেকে চারশ গ্রাহককে আমরা পাসপোর্ট সেবা দিয়ে থাকি। হঠাৎ সার্ভার বিপর্যয়ে এসব প্রবাসীরা সাময়িক বিপাকে পড়েছে মানতে হবে। অপর এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, দুবাই কনসুলেটে যে পরিমাণ সেবা দেয়া হয়, তা দূতাবাসে সম্ভব নয়। কেননা দূতাবাসে ওই পরিমাণ জনবল নেই। তাই দুবাইতে সার্ভার ঠিক না হওয়া পর্যন্ত দুর্ভোগ কমার সম্ভাবনা ক্ষীণ। এ ব্যাপারে জানতে দুবাই কনসুলেটের কনসাল জেনারেল বদিরুজ্জামানকে তার অফিসে পাওয়া যায়নি। অন্য কর্মকর্তারাও কথা বলতে রাজি হননি। সেবা নিতে আসা এক বাংলাদেশি অভিযোগ করেন, ‘পাসপোর্ট রিনিউ (নবায়ন) করব, পাসপোর্টের ডেট ওভার (মেয়াদ শেষ) হয়ে গেছে। এখন আমার ভিসা লাগতেছে না রিনিউয়ের জন্য। শত শত বাঙালি কষ্ট করে এই সমস্যা নিয়ে আসে। লাইসেন্স রিনিউ করতে পারে না, ভিসা লাগাইতে পারে না।’ ওই প্রবাসী বলেন, ‘একজনের মা মারা গেছে, উনি দেশে যাইতে পারতেছে না, পাসপোর্ট রিনিউ করার জন্য। এগুলার দায়দায়িত্ব কেডা নিবে?’ পাসপোর্ট নবায়নের জন্য দুইবার এখানে এসেছি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আসলেই সিকিউরিটি আমাদের ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয়। কোনো অফিসার আসে না। আমাদের খোঁজ-খবর নেয় না। তাহলে আমরা কীভাবে এখানে বসবাস করি।’ জানা গেছে, ২০১০ সালে এ সার্ভার সংযোজন করা হয়। দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে এ সার্ভার বিপর্যয় হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানান। এদিকে পাসপোর্টের সেবা নিতে আসা গ্রাহকরা জানান, সার্ভার বিপর্যয়ের ঘটনা কনসুলেট যথাযথভাবে প্রচার করেনি। ফলে বাংলাদেশিদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে। হাজার হাজার পাসপোর্ট গ্রাহককে দূতাবাসে এসে ফিরে যেতে হচ্ছে।




আরো খবর